ঢাকা ০৭:৫০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টঙ্গীবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যান সুমন হালদারকে গুলি করে হত্যা, আটক-৩

 মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন নিয়ে দ্বন্দ্বে  এস এম সুমন হালদার (৪৫) নামে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা করেছে চাচা ও চাচাতো ভাইয়েরা । রবিবার দুপুর ১ টার দিকে উপজেলার পাঁচগাঁও বাজার এলাকার আলহাজ্ব ওয়াহে আলী দেওয়ান উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এই হত্যা কান্ডের ঘটনা ঘটে।  নিহত এস এম সুমন হালদার পাঁচগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন৷ সে ওই গ্রামের পিয়ার হোসেন হালদারের ছেলে। তার একটি পুত্র ও একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিবার ওয়াহেদ আলী দেওয়ান উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন চলছিলো এসময় ভোটাধিকার প্রয়োগ নিয়ে নিহতের চাচা ও চাচাতো ভাই  মৃত মকবুল হালদারের ছেলে নুর মোহাম্মদ,  ‍নুর আহম্মেদ ভোলা, চাচাতো ভাই সেকু নুর ও  কাউসারের সাথে কথা-কাটাকাটি এক পর্যায়ে  ইউপি চেয়ারম্যান সুমনকে এলোপাথারি গুলি করে৷ পরে আশে পাশের লোকজন ছুটে এসে সুমনকে গুরুতর আহতবস্থায় উদ্ধার করে টঙ্গিবাড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে৷ এঘটনায় মৃত মকবুল হালদারের ছেলে নুর মোহাম্মদ তার ছেলে সেকু নুর ও কাউসার নামের ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
তারা আরো বলেন,হত্যা কান্ডের সাথে জড়িতরা সবাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি প্রার্থী বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. মিলেনুর রহমান মিলন এর অনুসারী।
নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে টঙ্গিবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মোল্লা শোয়েব আলী বলেন, হত্যা কান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ তাৎক্ষণিক কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানোর প্রকৃয়া  চলছে।
ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শেরপুরে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারী-পুলিশ সংঘর্ষ : পুলিশের গুলি, পুলিশ ও সাংবাদিকসহ আহত ২০

টঙ্গীবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যান সুমন হালদারকে গুলি করে হত্যা, আটক-৩

আপডেট সময় ১০:৫৭:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ জুলাই ২০২৪
 মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন নিয়ে দ্বন্দ্বে  এস এম সুমন হালদার (৪৫) নামে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা করেছে চাচা ও চাচাতো ভাইয়েরা । রবিবার দুপুর ১ টার দিকে উপজেলার পাঁচগাঁও বাজার এলাকার আলহাজ্ব ওয়াহে আলী দেওয়ান উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এই হত্যা কান্ডের ঘটনা ঘটে।  নিহত এস এম সুমন হালদার পাঁচগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন৷ সে ওই গ্রামের পিয়ার হোসেন হালদারের ছেলে। তার একটি পুত্র ও একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিবার ওয়াহেদ আলী দেওয়ান উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন চলছিলো এসময় ভোটাধিকার প্রয়োগ নিয়ে নিহতের চাচা ও চাচাতো ভাই  মৃত মকবুল হালদারের ছেলে নুর মোহাম্মদ,  ‍নুর আহম্মেদ ভোলা, চাচাতো ভাই সেকু নুর ও  কাউসারের সাথে কথা-কাটাকাটি এক পর্যায়ে  ইউপি চেয়ারম্যান সুমনকে এলোপাথারি গুলি করে৷ পরে আশে পাশের লোকজন ছুটে এসে সুমনকে গুরুতর আহতবস্থায় উদ্ধার করে টঙ্গিবাড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে৷ এঘটনায় মৃত মকবুল হালদারের ছেলে নুর মোহাম্মদ তার ছেলে সেকু নুর ও কাউসার নামের ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
তারা আরো বলেন,হত্যা কান্ডের সাথে জড়িতরা সবাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি প্রার্থী বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. মিলেনুর রহমান মিলন এর অনুসারী।
নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে টঙ্গিবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মোল্লা শোয়েব আলী বলেন, হত্যা কান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ তাৎক্ষণিক কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানোর প্রকৃয়া  চলছে।