ঢাকা ০৭:৩৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কীর্তিনাশায় পিলারের ধক্কা খেয়ে ট্রলার, অল্পের জন্য রক্ষা পেল অর্ধশতাধিক যাত্রী

শরীয়তপুরের নড়িয়া সদরে কীর্তিনাশা নদীতে যাত্রী পারাপারের সময় ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ দুর্ঘটনায় অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে অর্ধশতাধিক যাত্রী।
রোববার (৭ জুলাই) সকালে ওই ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের উদ্ধার তৎপরতার ফলে কারো প্রাণহানি ঘটেনি। তবে কয়েকজন আহত হয়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে স্কুল শিক্ষার্থী সহ অর্ধশতাধিক যাত্রী ট্রলারে করে নদী পার হচ্ছিল। ট্রলারে ধারণক্ষমতার চেয়ে লোক বেশি থাকায় এবং নির্মানাধীন সেতুর পিলারের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ট্রলারটি ডুবে যায়। এসময় এলাকাবাসী দ্রুত নদীতে নেমে শিক্ষার্থী ও শিশুসহ বৃদ্ধদের উদ্ধার করেন। অন্যরা সাঁতরে পাড়ে ওঠেন।
জানাযায় কীর্তিনাশা নদীর উপর ভাষা সৈনিক ডাঃ গোলাম মাওলা সেতুটি ঝুকিপুর্ন হওয়ায় প্রায় ৭ বছর যাবত নতুন সেতু নির্মানের কাজ চলছে। এতদিন পুরোন সেতু দিয়ে হেটে চলা করলেও ৬ মাস আগে পুরোন সেতু ভেঙে ফেলা হয়। এরপর থেকে স্থানীয়দের ঝুকি নিয়ে ট্রলার দিয়ে পারাপার করতে হচ্ছে। অস্থায়ী পারাপারের জন্য বেইলী ব্রীজ নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হলেও সেটিরও কোন অগ্রগতি নেই। সম্প্রতি আরো একবার অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই হওয়ার কারনে ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটছে।
বিষয়টি নিশ্চিত করে নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ট্রলার ডুবির ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শেরপুরে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারী-পুলিশ সংঘর্ষ : পুলিশের গুলি, পুলিশ ও সাংবাদিকসহ আহত ২০

কীর্তিনাশায় পিলারের ধক্কা খেয়ে ট্রলার, অল্পের জন্য রক্ষা পেল অর্ধশতাধিক যাত্রী

আপডেট সময় ১০:৫২:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ জুলাই ২০২৪
শরীয়তপুরের নড়িয়া সদরে কীর্তিনাশা নদীতে যাত্রী পারাপারের সময় ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ দুর্ঘটনায় অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে অর্ধশতাধিক যাত্রী।
রোববার (৭ জুলাই) সকালে ওই ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের উদ্ধার তৎপরতার ফলে কারো প্রাণহানি ঘটেনি। তবে কয়েকজন আহত হয়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে স্কুল শিক্ষার্থী সহ অর্ধশতাধিক যাত্রী ট্রলারে করে নদী পার হচ্ছিল। ট্রলারে ধারণক্ষমতার চেয়ে লোক বেশি থাকায় এবং নির্মানাধীন সেতুর পিলারের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ট্রলারটি ডুবে যায়। এসময় এলাকাবাসী দ্রুত নদীতে নেমে শিক্ষার্থী ও শিশুসহ বৃদ্ধদের উদ্ধার করেন। অন্যরা সাঁতরে পাড়ে ওঠেন।
জানাযায় কীর্তিনাশা নদীর উপর ভাষা সৈনিক ডাঃ গোলাম মাওলা সেতুটি ঝুকিপুর্ন হওয়ায় প্রায় ৭ বছর যাবত নতুন সেতু নির্মানের কাজ চলছে। এতদিন পুরোন সেতু দিয়ে হেটে চলা করলেও ৬ মাস আগে পুরোন সেতু ভেঙে ফেলা হয়। এরপর থেকে স্থানীয়দের ঝুকি নিয়ে ট্রলার দিয়ে পারাপার করতে হচ্ছে। অস্থায়ী পারাপারের জন্য বেইলী ব্রীজ নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হলেও সেটিরও কোন অগ্রগতি নেই। সম্প্রতি আরো একবার অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই হওয়ার কারনে ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটছে।
বিষয়টি নিশ্চিত করে নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ট্রলার ডুবির ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।