ঢাকা ০২:৪৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফরিদপুরে ডাকাত চক্রের ৬ সদস্য গ্রেপ্তার

ফরিদপুরে আন্তঃজেলা ডাকাত চক্রের ৬ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে কোতয়ালী থানা পুলিশ।
 বুধবার  (২৬ শে জুন) বেলা ১২ টায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার মোঃ মোর্শেদ আলম জানান,  গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানাধীন লক্ষিপুরা এলাকার মোঃ কবির হোসেন (৪৩), জালাকান্দি এলাকার সাইফুল ইসলাম ওরফে সাঈদ (৪১) ও কাইমপুর এলাকার হৃদয় (৩৫), শরিয়তপুরের ড্যামুডা উপজেলার চর বয়রা এলাকার মোঃ সাইফুল ইসলাম (২৭) ও চরনারায়ণপুর এলাকার ফরহাদ শেখ (৩২) এবং ফরিদপুর সদরের পরমানন্দপুর গ্রামের আতিয়ার শেখ (৩৮)। এরমধ্যে কবির হোসেন, সাইফুল ইসলাম ওরফে সাঈদ ও হৃদয়ের নামে যথাক্রমে ৭, ৯ ও ৫টি করে ডাকাতি মামলা রয়েছে ।
গত ১৪ ই জুন রাতে জেলা সদরের কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের গোসাই ভবুকদিয়া গ্রামে মৃতুঞ্জয় কুমার বাবুলের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এতে তাদের প্রায় চার লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নেয় চক্রটি। এ ঘটনায় কোতয়ালী থানায় বাবুলের স্ত্রী মাধুরী রানী সরকার বাদী হয়ে ডাকাতি মামলা দায়ের করেন। পরে কোতয়ালী থানা পুলিশ সোমবার ( ২৪ শে জুন)  দিবাগত রাতে নারায়ণগঞ্জ, শরীয়তপুর ও ফরিদপুরে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে। এ সময় ডাকাতি হওয়া আংশিক মালামাল উদ্ধার করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানান, ডাকাতির সময় চক্রটির ১০ থেকে ১২ জন সদস্য অংশ নেয়। চক্রটি ঢাকার যাত্রাবাড়িতে একত্র হয়ে ডাকাতির পরিকল্পনা করে থাকে। এরপর সেখান থেকে স্থানীয় একজনের সাথে যোগাযোগ রাখেন। একইভাবে যাত্রাবাড়ি থেকে পিকআপ ভাড়া করে ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে হয়ে ঘটনার দিন রাতে ফরিদপুরে আসে চক্রটির সদস্যরা। এরমধ্যে স্থানীয় দুইজন সদস্যের সাথে ঢাকা থেকে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রাখেন কবির হোসেন। সে ফরিদপুরে আসা সদস্যদের তথ্য পাঠাতে থাকেন। পরে সকাল হওয়ার আগেই ডাকাতি করে চলে যায়।
তিনি আরো জানান, চক্রটির সদস্যরা বেশভূসায় শ্রমিক ছদ্মবেশে থাকে। দিনের বেলায় তারা নিজেদের গোপন রাখার জন্য এই রুপ ধারণ করে থাকে। রাত হলেই ডাকাতি করে থাকে। চক্রটির সদস্য পেশাদার ডাকাত এবং খুবই চতুর ধরণের।
গ্রেপ্তারকৃতদের বিকেলে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা  এবং রিমান্ডের আবেদন করা হবে বলে পুলিশ সুপার জানান। এছাড়া বাকি সদস্যদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে ।
এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ সালাউদ্দিন, কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ হাসানুজ্জামান হাসান উপস্থিত ছিলেন।
ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শেরপুরে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারী-পুলিশ সংঘর্ষ : পুলিশের গুলি, পুলিশ ও সাংবাদিকসহ আহত ২০

ফরিদপুরে ডাকাত চক্রের ৬ সদস্য গ্রেপ্তার

আপডেট সময় ০৫:৪৪:৪৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৬ জুন ২০২৪
ফরিদপুরে আন্তঃজেলা ডাকাত চক্রের ৬ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে কোতয়ালী থানা পুলিশ।
 বুধবার  (২৬ শে জুন) বেলা ১২ টায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার মোঃ মোর্শেদ আলম জানান,  গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানাধীন লক্ষিপুরা এলাকার মোঃ কবির হোসেন (৪৩), জালাকান্দি এলাকার সাইফুল ইসলাম ওরফে সাঈদ (৪১) ও কাইমপুর এলাকার হৃদয় (৩৫), শরিয়তপুরের ড্যামুডা উপজেলার চর বয়রা এলাকার মোঃ সাইফুল ইসলাম (২৭) ও চরনারায়ণপুর এলাকার ফরহাদ শেখ (৩২) এবং ফরিদপুর সদরের পরমানন্দপুর গ্রামের আতিয়ার শেখ (৩৮)। এরমধ্যে কবির হোসেন, সাইফুল ইসলাম ওরফে সাঈদ ও হৃদয়ের নামে যথাক্রমে ৭, ৯ ও ৫টি করে ডাকাতি মামলা রয়েছে ।
গত ১৪ ই জুন রাতে জেলা সদরের কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের গোসাই ভবুকদিয়া গ্রামে মৃতুঞ্জয় কুমার বাবুলের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এতে তাদের প্রায় চার লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নেয় চক্রটি। এ ঘটনায় কোতয়ালী থানায় বাবুলের স্ত্রী মাধুরী রানী সরকার বাদী হয়ে ডাকাতি মামলা দায়ের করেন। পরে কোতয়ালী থানা পুলিশ সোমবার ( ২৪ শে জুন)  দিবাগত রাতে নারায়ণগঞ্জ, শরীয়তপুর ও ফরিদপুরে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে। এ সময় ডাকাতি হওয়া আংশিক মালামাল উদ্ধার করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানান, ডাকাতির সময় চক্রটির ১০ থেকে ১২ জন সদস্য অংশ নেয়। চক্রটি ঢাকার যাত্রাবাড়িতে একত্র হয়ে ডাকাতির পরিকল্পনা করে থাকে। এরপর সেখান থেকে স্থানীয় একজনের সাথে যোগাযোগ রাখেন। একইভাবে যাত্রাবাড়ি থেকে পিকআপ ভাড়া করে ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে হয়ে ঘটনার দিন রাতে ফরিদপুরে আসে চক্রটির সদস্যরা। এরমধ্যে স্থানীয় দুইজন সদস্যের সাথে ঢাকা থেকে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রাখেন কবির হোসেন। সে ফরিদপুরে আসা সদস্যদের তথ্য পাঠাতে থাকেন। পরে সকাল হওয়ার আগেই ডাকাতি করে চলে যায়।
তিনি আরো জানান, চক্রটির সদস্যরা বেশভূসায় শ্রমিক ছদ্মবেশে থাকে। দিনের বেলায় তারা নিজেদের গোপন রাখার জন্য এই রুপ ধারণ করে থাকে। রাত হলেই ডাকাতি করে থাকে। চক্রটির সদস্য পেশাদার ডাকাত এবং খুবই চতুর ধরণের।
গ্রেপ্তারকৃতদের বিকেলে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা  এবং রিমান্ডের আবেদন করা হবে বলে পুলিশ সুপার জানান। এছাড়া বাকি সদস্যদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে ।
এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ সালাউদ্দিন, কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ হাসানুজ্জামান হাসান উপস্থিত ছিলেন।