ঢাকা ০৫:৫৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ত্রি-মুখী লড়ায়ে ব্যক্তি ইমেজে এগিয়ে মামুন

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় ধাপে আগামী ২৯শে মে শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে ৯৩টি ভোট কেন্দ্র চলছে প্রচারণা। প্রার্থীদের র্নিঘুম এই প্রচারণায় মুখরিত পুরো নির্বাচনী এলাকা।ভোটের আমেজে প্রার্থী, প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকদের পাশাপাশি অংশ নিয়েছেন সাধারণ মানুষও।ভোট নিয়ে চুলচেড়া বিশ্লেষণ চলছে পাড়ার-মহল্লায়,চা’য়ের দোকানগুলোতে।আলোচনায় মূল বিষয় ফুটে ওঠে,টাকার সাথে সুশীল সমাজের প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।
উপজেলা পরিষদের এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুর রহমান জিঠু তার প্রতিক আনারস ও কোলাপাড়া ইউনিয়ন সভাপতি এম মাহবুব উল্লাহ কিসমত তাঁর প্রতীক দোয়াত কলম।এই ২জন প্রতিনিধিকে পরাস্ত করতে মাঠে লড়ছেন চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ মসিউর রহমান মামুন তাঁর প্রতীক কাপ-পিরিচ।তাঁর সঙ্গে রয়েছেন উপজেলার ১৪ ইউনিয়নের ১২ জন চেয়ারম্যান তার সাথে যোগ দিয়েছেন আরো ১৪ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও নাগরিক সমাজের ব্যক্তিবর্গরা এবং তৃণমূলের স্বেচ্ছাসেবক লীগ,ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বেশিরভাগ নেতাকর্মী।
উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা গেছে,এবারের নির্বাচন হবে প্রতিদ্বন্দিতামূলক।এই নির্বাচনে কেউ কাউকে ছাড় দেওয়ার সম্ভাবনা নেই।
ওয়াহিদুর রহমান জিঠু উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলার আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক তিনি আনারস মার্কা নিয়ে লড়ছেন।আওয়ামী লীগের দু:সময়ে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।তার সমর্থকরা দাবি করেন,আমাদের বিশ্বাস আমরা নিরাশ হবো না,আমরা বিজয়ী হবো।
এম মাহবুব উল্ল্যাহ কিসমত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য।তার আচারনে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে উদ্বিগ্ন তৈরি হয়েছে।নাম না প্রকাশ করার সত্বে এক হিন্দু নেতা সাংবাদিকদের কে বলেন,তিনি এতোদিন কেনো কাজ করেন নাই।যখন জেলা পরিষদের সদস্য ছিলেন। তখনতো,মন্দির-মসজিদ,কবরস্থানে সরকারী সহযোগিতায় কাজের সুযোগ ছিল।নির্বাচনের মধ্যে তার আর্থিক সহযোগিতা দিতে হবে কেন?নাগরিক সমাজের কয়েক জন ভোটার বলেন,ভোট বিক্রি হলে নির্বাচনের পর জনগণের কোন মূল্যায়নই থাকে না।সরেজমিনে ঘুরে আরো জানা যায়।কয়েক দিন আগে টাকা বিতরণ করার সময় ষোলঘর ও আটপাড়ার দুই কর্মীর ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়।রাঢ়ীখাল ইউনিয়নের মনিদাস পাড়ার মন্দিরের সাধারণ সম্পাদক তপন মনিদাসকে প্রশ্ন করা হয়েছিল,নির্বাচন চলা অবস্থায় (দোয়াত-কলমের)পক্ষ থেকে,মন্দির তৈরি করার জন্য ইট নিলেন কেন?তিনি বলেন,আমাদের পুজার সময় কিসমত সাহেব কথা দিয়ে ছিলো,তাই আজ ২হাজার ৫শত ইট পাঠায়েছে।নির্বাচনের পর ৮০০ কেজির রড,বালু,সিমেন্ট পাঠাবে,তার বিনিময়ে আমরা ভোটের প্রতিশ্রুতি দিয়েছি।
নির্বাচনে সাংগঠনিক দক্ষতা আর বিগত নির্বাচনগুলোর অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন মশিউর রহমান মামুন ।
দ্বিতীয়  বারের জন্য মশিউর রহমান মামুন কে কাপ পিরিচ মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত চলছে ওয়ার্ড পর্যায়ের উঠান বৈঠক।
বর্তমান চেয়ারম্যানের কাপ-পিরিচ প্রতীকের পক্ষে গত নির্বাচনের চির প্রতিদ্বন্দ্বী জাকিরের অনুসারী নেতাকর্মীরা কাজ করছেন।স্থানীয়দের ভাষ্যমতে- গত নির্বাচনে জাকির-মামুন হাড্ডাহাড্ডি লড়ায়ে মামুন বিজয়ী হয়।জাকিরের শারীরিক অসুস্থতার কারণে এবারের ৬ষ্ঠ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।তারা বিগত পাচ বছরে মামুনের সততা নিষ্ঠা এবং উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরায় বিবেকবান ও সুশীল সমাজের কাছে বিষয়টি যথেষ্ট প্রধান্য পায়।যারা মামুনকে সাপোর্ট দিয়েছে শ্রীনগর উপজেলার বেশকিছু  জনপ্রিয় রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব।
এরা হচ্ছেন-শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও মুন্সিগন্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী,জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি কাজী সামসুল আলম সবজল,সাবেক ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সেলিম আহাম্মেদ ভুঁইয়া,কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও বিশিষ্ট শিল্পপতি আলহাজ্ব জাকির হোসেন।আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মাকসুদ আলম ডাবলু,কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক  এমরান হোসেন খান,কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সহসভাপতি গোলাম সরোয়ার মামুন,কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান চপল,কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ উপকমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার গোলাম কিবরিয়া শিমুল,বিকল্প ধারার সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ডাঃ আব্দুল হাকিম সহ উপজেলা আওয়ামী লীগ,যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ,ছাত্র লীগ ও বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের  অধিকাংশ নেতা-কর্মীরা মাঠে রয়েছেন কাপ পিরিচের প্রচারনায়।
নির্বাচনের শ্রীনগর উপজেলার জমজমাট প্রচার-প্রচারণায় ভোটারদের মাঝে উৎসব বিরাজ করলেও ভোটের দিন কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কেমন হবে এই নিয়ে উদ্বিগ্ন উপজেলার সচেতন নাগরিকরা।
শ্রীনগর-সিরাজদিখান উপজেলার দ্বায়িত্ব থাকা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা অমিত কুমার দাস বলেন, অবাধ-নিরপেক্ষ সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সর্বাত্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন তাঁরা। সেই ক্ষেত্রে র্নিভয়ে ভোটারদের কেন্দ্রে এসে নিজের ভোটাধিকার প্রয়োগের আহব্বান জানান এই কর্মকর্তা।
ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ফরিদপুরের আদিবাসীদের শিক্ষা কর্মসংস্থান ও বাসস্থানের নিশ্চয়তা দাবী

শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ত্রি-মুখী লড়ায়ে ব্যক্তি ইমেজে এগিয়ে মামুন

আপডেট সময় ০৫:৪৫:৫৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪
ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় ধাপে আগামী ২৯শে মে শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে ৯৩টি ভোট কেন্দ্র চলছে প্রচারণা। প্রার্থীদের র্নিঘুম এই প্রচারণায় মুখরিত পুরো নির্বাচনী এলাকা।ভোটের আমেজে প্রার্থী, প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকদের পাশাপাশি অংশ নিয়েছেন সাধারণ মানুষও।ভোট নিয়ে চুলচেড়া বিশ্লেষণ চলছে পাড়ার-মহল্লায়,চা’য়ের দোকানগুলোতে।আলোচনায় মূল বিষয় ফুটে ওঠে,টাকার সাথে সুশীল সমাজের প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।
উপজেলা পরিষদের এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুর রহমান জিঠু তার প্রতিক আনারস ও কোলাপাড়া ইউনিয়ন সভাপতি এম মাহবুব উল্লাহ কিসমত তাঁর প্রতীক দোয়াত কলম।এই ২জন প্রতিনিধিকে পরাস্ত করতে মাঠে লড়ছেন চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ মসিউর রহমান মামুন তাঁর প্রতীক কাপ-পিরিচ।তাঁর সঙ্গে রয়েছেন উপজেলার ১৪ ইউনিয়নের ১২ জন চেয়ারম্যান তার সাথে যোগ দিয়েছেন আরো ১৪ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও নাগরিক সমাজের ব্যক্তিবর্গরা এবং তৃণমূলের স্বেচ্ছাসেবক লীগ,ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বেশিরভাগ নেতাকর্মী।
উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা গেছে,এবারের নির্বাচন হবে প্রতিদ্বন্দিতামূলক।এই নির্বাচনে কেউ কাউকে ছাড় দেওয়ার সম্ভাবনা নেই।
ওয়াহিদুর রহমান জিঠু উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলার আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক তিনি আনারস মার্কা নিয়ে লড়ছেন।আওয়ামী লীগের দু:সময়ে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।তার সমর্থকরা দাবি করেন,আমাদের বিশ্বাস আমরা নিরাশ হবো না,আমরা বিজয়ী হবো।
এম মাহবুব উল্ল্যাহ কিসমত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য।তার আচারনে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে উদ্বিগ্ন তৈরি হয়েছে।নাম না প্রকাশ করার সত্বে এক হিন্দু নেতা সাংবাদিকদের কে বলেন,তিনি এতোদিন কেনো কাজ করেন নাই।যখন জেলা পরিষদের সদস্য ছিলেন। তখনতো,মন্দির-মসজিদ,কবরস্থানে সরকারী সহযোগিতায় কাজের সুযোগ ছিল।নির্বাচনের মধ্যে তার আর্থিক সহযোগিতা দিতে হবে কেন?নাগরিক সমাজের কয়েক জন ভোটার বলেন,ভোট বিক্রি হলে নির্বাচনের পর জনগণের কোন মূল্যায়নই থাকে না।সরেজমিনে ঘুরে আরো জানা যায়।কয়েক দিন আগে টাকা বিতরণ করার সময় ষোলঘর ও আটপাড়ার দুই কর্মীর ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়।রাঢ়ীখাল ইউনিয়নের মনিদাস পাড়ার মন্দিরের সাধারণ সম্পাদক তপন মনিদাসকে প্রশ্ন করা হয়েছিল,নির্বাচন চলা অবস্থায় (দোয়াত-কলমের)পক্ষ থেকে,মন্দির তৈরি করার জন্য ইট নিলেন কেন?তিনি বলেন,আমাদের পুজার সময় কিসমত সাহেব কথা দিয়ে ছিলো,তাই আজ ২হাজার ৫শত ইট পাঠায়েছে।নির্বাচনের পর ৮০০ কেজির রড,বালু,সিমেন্ট পাঠাবে,তার বিনিময়ে আমরা ভোটের প্রতিশ্রুতি দিয়েছি।
নির্বাচনে সাংগঠনিক দক্ষতা আর বিগত নির্বাচনগুলোর অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন মশিউর রহমান মামুন ।
দ্বিতীয়  বারের জন্য মশিউর রহমান মামুন কে কাপ পিরিচ মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত চলছে ওয়ার্ড পর্যায়ের উঠান বৈঠক।
বর্তমান চেয়ারম্যানের কাপ-পিরিচ প্রতীকের পক্ষে গত নির্বাচনের চির প্রতিদ্বন্দ্বী জাকিরের অনুসারী নেতাকর্মীরা কাজ করছেন।স্থানীয়দের ভাষ্যমতে- গত নির্বাচনে জাকির-মামুন হাড্ডাহাড্ডি লড়ায়ে মামুন বিজয়ী হয়।জাকিরের শারীরিক অসুস্থতার কারণে এবারের ৬ষ্ঠ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।তারা বিগত পাচ বছরে মামুনের সততা নিষ্ঠা এবং উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরায় বিবেকবান ও সুশীল সমাজের কাছে বিষয়টি যথেষ্ট প্রধান্য পায়।যারা মামুনকে সাপোর্ট দিয়েছে শ্রীনগর উপজেলার বেশকিছু  জনপ্রিয় রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব।
এরা হচ্ছেন-শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও মুন্সিগন্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী,জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি কাজী সামসুল আলম সবজল,সাবেক ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সেলিম আহাম্মেদ ভুঁইয়া,কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও বিশিষ্ট শিল্পপতি আলহাজ্ব জাকির হোসেন।আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মাকসুদ আলম ডাবলু,কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক  এমরান হোসেন খান,কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সহসভাপতি গোলাম সরোয়ার মামুন,কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান চপল,কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ উপকমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার গোলাম কিবরিয়া শিমুল,বিকল্প ধারার সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ডাঃ আব্দুল হাকিম সহ উপজেলা আওয়ামী লীগ,যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ,ছাত্র লীগ ও বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের  অধিকাংশ নেতা-কর্মীরা মাঠে রয়েছেন কাপ পিরিচের প্রচারনায়।
নির্বাচনের শ্রীনগর উপজেলার জমজমাট প্রচার-প্রচারণায় ভোটারদের মাঝে উৎসব বিরাজ করলেও ভোটের দিন কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কেমন হবে এই নিয়ে উদ্বিগ্ন উপজেলার সচেতন নাগরিকরা।
শ্রীনগর-সিরাজদিখান উপজেলার দ্বায়িত্ব থাকা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা অমিত কুমার দাস বলেন, অবাধ-নিরপেক্ষ সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সর্বাত্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন তাঁরা। সেই ক্ষেত্রে র্নিভয়ে ভোটারদের কেন্দ্রে এসে নিজের ভোটাধিকার প্রয়োগের আহব্বান জানান এই কর্মকর্তা।