ঢাকা ০৪:৫৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডামুড্যায় বাজারে যাওয়ার পথে সাপের কামড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু 

শরীয়তপুরের ডামুড্যায় বিষধর সাপের কামড়ে সেকান্তর বেপারী (৮৫) নামের এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার পূর্ব ডামুড্যা ইউনিয়নের বড় নওগাঁ এলাকায় এঘটনা ঘটে।
জানা যায়, নিহত সেকান্তর বেপারী একই এলাকার মৃত জুলমত আলী বেপারীর ছেলে।
পরিবার জানায়, সেকান্তর বেপারী শনিবার দুপুরে একটি মাটির রাস্তা ধরে বাজারে যাচ্ছিলেন। এসময় তার পায়ে একটি বিষধর সাপে কামড় দেয়। সেসময় তাঁর চিৎকারে স্থানীয় ও স্বজনরা দ্রুত উদ্ধার করে প্রথমে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে বিকেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহতের ছেলে দিদারুল বেপারী বলেন, বাবা আমাদের সাথে খাবার খেয়ে বাজারে যাওয়ার জন্য বের হয়েছিলেন। আমাদের বাড়ি থেকে একটু সামনে গেলে তাকে সাপে কাটে। পরে তাকে নিয়ে আমরা হাসপাতালে গেলে চিকিৎসক জানায় তিনি আর বেঁচে নেই।’
এ ব্যাপারে সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. মিতু আক্তার বলেন, সাপে কাটা এক রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিলো। তবে তাকে দেরি করে আনায় বাঁচানো সম্ভব হয়নি।
ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ফরিদপুরের আদিবাসীদের শিক্ষা কর্মসংস্থান ও বাসস্থানের নিশ্চয়তা দাবী

ডামুড্যায় বাজারে যাওয়ার পথে সাপের কামড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু 

আপডেট সময় ০৩:৩৯:৪৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪
শরীয়তপুরের ডামুড্যায় বিষধর সাপের কামড়ে সেকান্তর বেপারী (৮৫) নামের এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার পূর্ব ডামুড্যা ইউনিয়নের বড় নওগাঁ এলাকায় এঘটনা ঘটে।
জানা যায়, নিহত সেকান্তর বেপারী একই এলাকার মৃত জুলমত আলী বেপারীর ছেলে।
পরিবার জানায়, সেকান্তর বেপারী শনিবার দুপুরে একটি মাটির রাস্তা ধরে বাজারে যাচ্ছিলেন। এসময় তার পায়ে একটি বিষধর সাপে কামড় দেয়। সেসময় তাঁর চিৎকারে স্থানীয় ও স্বজনরা দ্রুত উদ্ধার করে প্রথমে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে বিকেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহতের ছেলে দিদারুল বেপারী বলেন, বাবা আমাদের সাথে খাবার খেয়ে বাজারে যাওয়ার জন্য বের হয়েছিলেন। আমাদের বাড়ি থেকে একটু সামনে গেলে তাকে সাপে কাটে। পরে তাকে নিয়ে আমরা হাসপাতালে গেলে চিকিৎসক জানায় তিনি আর বেঁচে নেই।’
এ ব্যাপারে সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. মিতু আক্তার বলেন, সাপে কাটা এক রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিলো। তবে তাকে দেরি করে আনায় বাঁচানো সম্ভব হয়নি।