ভাগ্যকুলে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে চাঁদা না পেয়ে নির্মানাধীন মার্কেটের জমি দখলের অভিযোগ

এমএ কাইয়ুম মাইজভান্ডারি (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে চাঁদার টাকা না পেয়ে নির্মানাধীন মার্কেটের  নির্মান কাজ বন্ধ করে দিয়ে জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে।
বৃহস্পতিবার( ১৩ অক্টোম্বর) উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের আলামিন বাজারে শ্রীনগর-দোহার রোডের দক্ষিন পাশ্বে এ ঘটনা ঘটে। এব্যাপারে ভুক্তভোগী হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে ভাগ্যকুল ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নুরুল আমিন মোড়ল(৪০)সহ ১১ জনকে বিবদী করে থানায় একটি চাঁদাবাজির অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়নের উত্তর কামারগাঁও এলাকার মৃত ইদ্রিস মুন্সীর ছেলে হাবিবুর রহমান আলামিন বাজারস্থ শ্রীনগর-দোহার রোডের পার্শ্বে তার ক্রয়কৃত সম্পত্তিতে গত ৪ মাস যাবৎ মার্কেট নির্মাণের জন্য পাইলিংয়ের কাজ শেষ করেন। একাজ চলাকালে ইউপি সদস্য নুরুল আমিন মোড়লসহ একই এলাকার মৃত ইসাহাক মোড়লের ছেলে বারেক মোড়ল, আনোয়ারের ছেলে মোহন, বারেক মোড়লের ছেলে বিপুল মোড়ল, আলী সরদারের ছেলে আলামিন, মারফত আলীর ছেলে রবিন, মৃত সিরাজের ছেলে রিফাত, মৃত আনোয়ারের ছেলে ইসমাইল, আঃ বারেকের ছেলে হৃদয়, রিপনের ছেলে হৃদয় ও পার্শ্ববর্তী বাঘড়া ইউনিয়নের মধ্য বাঘড়া এলাকার মৃত ইউনুছ খার ছেলে রাজাসহ আরো অজ্ঞাত নামা ৫/৬ জন হাবিবুরের কাছে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করেন। ভুক্তভোগী প্রাণ ভয়ে নুরুল আমিন মোড়ল গংদের দাবিকৃত চাঁদার ৫ লক্ষ টাকা দেন। গত ২ সেপ্টেম্বর ভুক্তভোগীর কাছে চাঁদার বাকি ৫লক্ষ টাকার জন্য চাপ প্রয়োগ করে নুরুল আমিন মোড়ল গং। ভুক্তভোগী চাঁদার টাকা না দেয়ায় নির্মানাধীন মার্কেটের নির্মান কাজ বন্ধ করে দিয়ে নির্মানাধীন মার্কেট দখলের করার উদ্দেশ্যে গাড়ী করে বালু এনে ভরাট করে এবং নানা ধরনের ভয়ভীতিসহ হুমকি প্রদর্শন করে চলে যায়। ঘটনার দিন বুধবার দুপুরে নুরুল আমিন মোড়লগং দাবিকৃত চাঁদার বাকী ৫লক্ষ টাকা না পেয়ে পুনরায় এসে ভুক্তভোগীর নির্মানাধীন মার্কেটের নির্মান কাজ বন্ধ করে দেয় এবং টিনের বাউন্ডারী বেড়া ও ঘর ভাংচুর করে ব্যাপক ক্ষতি সাধনসহ জমি দখলে নেয়ার চেষ্টা করে।
এব্যাপারে অভিযুক্ত ভাগ্যকুল ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নুরুল আমিন মোড়লের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কালকে যারা রফিকদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছে তারাই আজকে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। আমি এই ঘটনার সাথে জড়িত নই। আমাকে প্রতিহিংসার কারনে দোষী করছে। আলামিন বাজারে একাধিক সিসি ক্যামেরা রয়েছে সেগুলো একটু দেখেন যে আমি এই ঘটনার সাথে জড়িত কিনা।
 শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, এব্যাপারে পেয়েছি। তদন্ত করে দেখতেছি।