শিশুশ্রম নাকি বাবা মায়ের অবহেলা?

সাইফুল্লাহঃ

জন্মই যেন আজন্ম পাপ। সকাল হতে যেসব বাচ্চাদের দিন শুরু হয় বই-খাতা এবং স্কুল গোছানো আর রাতের বেলা পড়া নিয়ে। মা বাবার স্বপ্ন থাকে সন্তান মস্ত বড় অফিসার হবে।
তবে এমনটা যদি হয় বাবা সিটি কর্পোরেশনে ময়লা ফেলানোর কাজ করে। সেই বাবা গাড়িটাকে ঠেলা দিতে অন্য শ্রমিক না নিয়ে নিজের সহধর্মিণীকে নেয়। তখন সমস্যা দাঁড়ায় সেই পরিবারের ছোট বাচ্চা। বাধ্য হয়ে বাচ্চাটাকে নিয়েই বেরুতে হয়, সেটা হোক ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায়। গাড়ির সামনে বসিয়ে বাবা মা গাড়িটাকে ঠেলতে থাকে। বাচ্চাটা তখন আনন্দ পেলেও অবুঝ বাচ্চা তার ভবিষ্যৎ কি জিনিস এটাতো আর বুঝে না।
শুধু এটা নয় অসংখ্য লেগুনা, লোকাল বাস, ট্রাক সহ প্রায় যানবাহনে শিশুশ্রমিক পরিলক্ষিত হয়। যদিও দেশে শিশুশ্রম দন্ডনীয় অপরাধ। তবুও কেন থামে না? সমস্যা কোথায়?  এক বাবাকে প্রশ্ন করলেও উত্তরটাও মর্মাহত- গরিবের আবার পড়ালেখা। না পারুম পড়া শেষ করাতে না পারুম চাকরি ধরাতে ট্যাকা দিতে। কি লাভ?
প্রতিদিন সকালে বাবা মায়ের সাথে দিন শুরু হয় এই বাচ্চাগুলোর। তাদের স্কুলের কথা মনে থাকে না, নাকি রাখতে চায় না! ঐ পরিবারের সদস্যরা। তখন তাদের কথা কে ভাবে? প্রশ্ন জাগে দরিদ্র পরিবারের বাচ্চাদের শিক্ষা দিতে অনেক এনজিও কাজ করছে তবুও কেন তারা পিছিয়ে থাকবে?
দরিদ্র পরিবারের বাচ্চাদের আয়ের টাকার অংশ পরিবার পেলেও অধিকাংশ শিশু এ টাকায় মাদকে আসক্ত হচ্ছে। আবার অল্প বয়সে জীবন কি জিনিস সেটা না বুঝে কারোর প্ররোচনায় কিশোর গ্যাং এ পরিনত হয়। ফলে এক সময় চরম ঝুঁকিতে পড়তে হবে জাতিকে। শুধু জাতিকে বিপদে পড়ে কাঁদতে হয় পরিবারটিকে।  তখন কিছুই করার থাকে না।