বাংলাদেশ শুধু ঋণ নেয় তা নয়, বিভিন্ন দেশকে ঋণ দেয় – নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

মোঃ আরমান হোসেন দিনাজপুর প্রতিনিধি :
৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করার পর অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশকে ক্ষমতালোভী জিয়া-এরশাদ খালেদারা সাম্প্রদায়িকতার মাধ্যমে দেশে নৈরাজ্য, অশান্তি ও লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করেছিল উল্লেখ করে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এম.পি বলেছেন, ক্ষমতালোভী জিয়া-এরশাদ খালেদারা সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টির মাধ্যমে দেশে শাষণ শষণ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে অপমানিত করে এদেশকে বিভক্ত করতে চেয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের মধ্যদিয়ে আমাদের যে অর্জন গর্ব এবং অহংকার তারা তা নসাৎ করতে চেয়েছিল। শুধু তাই নয়, রাষ্ট্রীয় পৃষ্টোপোষকতায় বাংলাভাই ও শাঈখ আব্দুর রহমানেকে তৈরী করা হয়েছিল। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা করে মানুষ হত্যা করা হয়েছে। ৭১ এর যুদ্ধাপরাধীদের লালন পালন করে রাজনৈতিক ভাবে ও  সমাজে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে। আজকে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী  দেশরতত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশ পরিচালিত হচ্ছে। যারা অপকর্ম করতো অশান্তি সৃষ্টি করতো আমরা তাদের নির্মূল করতে সমর্থ হয়েছি। তাদের নির্মূল করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের আইনশৃংখলা বাহিনী যে সফলাত দেখিয়েছে পৃথীবির ইতিহাসে তা স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। আমাদের দেশের আইন শৃংখলা বাহিনী শান্তি মিশনেও পৃথিবীর শান্তি রক্ষার ক্ষেত্রে যে যুগান্তকারী ভ’মিকা পালন করে চলেছে সমগ্র পৃথিবীতে আমরা সমাদ্রিত হয়েছি। এমনি ভাবে বাংলাদেশের সন্ত্রাস জঙ্গীগোষ্ঠিকে নির্মুল করার ক্ষেত্রেও আমরা সাফল্য দেখিয়েছি। আজকে সে জন্য সকল ধর্ম বর্ণের মানুষ বাংলাদেশে সাহসিকতার সঙ্গে বসবাস করতে পারে। মানুষ দুঃশ্চিন্তা মুক্ত ভাবে রাতে ঘুমাতে পারে। এই শান্তি ও মনের উৎসবকে তৈরী করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামলীগ ও শেখ হাসিনা।  শুধু শারদীয় উৎসব নয়, এখন প্রতিটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান গুলি অত্যন্ত শান্তি পূর্নভাবে অনুষ্ঠিত হয়। শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশকে উন্নয়নের রোল মডেলে নিয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব, আমাদের যে সোনার বাংলা বিনির্মাণের জন্য দিয়েছিলেন। আমরা সোনার বাংলা বিনির্মাণের দ্বারপ্রান্তে পৌছে গেছি। ধারাবাহিক পথচলার কারণে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীকে জাতি সংঘ কর্তৃক পুরস্কৃত ও তাকে সম্বমনিত করা হয়েছে। যে সম্মান মাননীয় প্রধান মন্ত্রী দেশের ১৬ কোটি মানুষকে উসর্গ করেছেন। আমরা করোনা মহামারির মধ্যেও জিডিপি ৫ ভাগ ধরে রাখতে পেরেছি। পৃথীবির অধিকাংশ দেশেই তা ধরে রাখতে পারেনি। আমাদের মাথাপিছু আয় ২ হাজার ২ শ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। আমাদের রির্জাভ ৫০ বিলিয়ন ছুই ছুই করছে। বাংলাদেশ শুধু ঋণ নেয় তা নয়। এখন মুঞ্জুরীসহ বিভিন্ন দাতাগোষ্ঠীকে ঋণ দেয়। এটা সম্ভব হয়েছে অসম্প্রদায়িক চেতনা লালন করার জন্য। এই ধারবাহিকতা আমাদেরকে ধরে রাখতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। মঙ্গলবার সকালে দিনাজপুরের বিরল উপজেলা পরিষদের হলরুমে আসন্ন শারদীয়া দূর্গোৎসব উপলক্ষে এক মতবিনিময় সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
বিরল উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার মোঃ আব্দুল ওয়াজেদের সভাপতিত্বে ও উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুবল রায়ের সঞ্চলোনায় বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, বিরল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম মোস্তাফিজুর রহমান বাবুু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব সবুজার সিদ্দিক সাগর, এএসপি (সদর সার্কেল) সুজন সরকার, উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রমাকান্ত রায় এবং বিরল থানার অফিসার ইনচার্জ ফখরুল ইসলাম। এছাড়া প্রমুখও বক্তব্য রাখেন। বক্তব্য শেষে উপজেলার ৯৪টি পুজা মন্ডপের প্রতিটি কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের হাতে সরকারি অনুদানের অর্থ ও শুভেচ্ছা উপপহার তুলে দেন প্রধান অতিথি নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুুদ চৌধুরী এম,পি।