নেত্রকোণা পৌর শহরের বন্যার্তদের মাঝে ওয়ার্ড কমিশনারের নগত দেড় লক্ষ টাকা বিতরণ

সোলায়মান হোসাইন রুবেল, নেত্রকোণা প্রতিনিধিঃ

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও ভারী বর্ষণের পানিতে জেলার বিভিন্ন উপজেলাসহ নেত্রকোণা পৌর শহরের ৯নং ওয়ার্ডের বেশকিছু এলাকা বন্যায় প্লাবিত হয়েছে।

বুধবার (২২ জুন) দুপুরে নেত্রকোণা পৌর শহরের ৯নং ওয়ার্ড ঘুরে বন্যা কবলিত এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত ও খতিবনগুয়া আশ্রয় কেন্দ্রের আশ্রিত অর্ধশতাধিক বন্যার্ত পরিবারের মাঝে নিজস্ব অর্থ নগদ ১ লক্ষ টাকা বিতরণ করেন মানবিক কমিশনার শেখ হেলাল উদ্দিন (হেলাল)।
এসময় নেত্রকোণা পৌর শহরের ৯নং ওয়ার্ডের বন্যা কবলিত চল্লিশাকান্দা, ধারিয়া, খতিবনগুয়া, চল্লিশাপাড়া ও দক্ষিণ কুরপাড়সহ বেশ কিছু এলাকার এবং খতিবনগুয়া আশ্রয় কেন্দ্রের আশ্রিত বন্যার্ত মোট অর্ধশতাধিক  পরিবারের মাঝে শিশু খাদ্যসহ তাদের পছন্দ মত খাবার কিনে খাওয়ার জন্য প্রতিটি পরিবারের হাতে ২ হাজার টাকা করে নগর অর্থ তুলে দেন কমিশনার হেলাল।
এছাড়াও পৌর শহরের ৯নং ওয়ার্ডের জেলখানা রোডের  চল্লিশাপাড়া, দক্ষিণ কুরপাড় ও ধারিয়া এলাকায় বন্যায় পানি বন্দি মানুষের চলাচলের সুবিধার্থে নিজ উদ্যোগে ৫ টি নৌকা তৈরির জন্য নগদ অর্থ ৬০ হাজার টাকা বিতরণ করেন কমিশনার হেলাল।
অর্থ সহায়তা বিতরণ কালে ৯নং ওয়ার্ডের কমিশনার মোঃ হেলাল উদ্দিন শেখ হেলাল বলেন, আমার ওয়ার্ডের বেশি কিছু এলাকা বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। ৩০ থেকে ৩৫টি পরিবারকে থাকার জন্য আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে খতিবনগুয়া জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ে জায়গা করে দেওয়া হয়েছে। এই দুর্যোগ কালিনী সময়ে সারাদেশের বন্যার্তদের সরকারসহ সবাই শুকনোখাদ্য সহ খাবার সামগ্রী বিতরণ করছে।
কিন্তু আমি এমন সময়ে আমার ওয়ার্ডের বন্যার্ত পরিবারদের শিশু বাচ্চাদের খাবার কিনে খাওয়ানোর সুবিধার্থের কথা চিন্তা করে আশ্রয় কেন্দ্র এবং বন্যা প্লাবিত বিভিন্ন এলাকা ঘুরে অর্ধশতাধিক পরিবারের হাতে আমার ব্যাক্তিগত উদ্যোগে নগত ২ হাজার করে টাকা তুলে দিয়েছি। তারা শিশু খাদ্যসহ তাদের পছন্দ মত খাবার কিনে পরিবার নিয়ে খাওয়ার জন্য। এমনকি আমি যতদিন বেঁচে থাকবো আমার ওয়ার্ডের বন্যাসহ বিভিন্ন দুর্যোগে মানুষকে না খেয়ে থাকতে দিবোনা ইনশাআল্লাহ।
তিনি আরো বলেন, এই দুর্যোগপূর্ণ সময়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহবান জানান তিনি।