স্বাস্থ্যের উপকারিতায় আদা’র ব্যবহার

ডেস্ক রিপোর্ট :

আদা একটি উদ্ভিদ মূল যা মানুষের মসলা এবং ভেজষ ঔষুধ হিসাবে ব্যবহৃত হয়। মশলা জাতীয় ফসলের মধ্যে আদা অন্যতম। আদা খাদ্যশিল্পে, পানীয় তৈরীতে, আচার, ঔষধ ও সুগন্ধি তৈরীতে ব্যবহার করা হয়। আদা সেই প্রথম মশালাগুলির মধ্যে একটি যা এশিয়া থেকে ইউরোপে রফতানি করা হয়েছিল, যা মূলত মশালার বাণিজ্যের মাধ্যমে পৌঁছেছিল এবং প্রাচীন গ্রীস এবং রোমানরা এটি ব্যবহার করত।

এটি ভেষজ ঔষধ। মুখের রুচি বাড়াতে ও বদহজম রোদে আদা শুকিয়ে চিবিয়ে খাওয়া হয়। অধিকন্তু সর্দি, কাশি, আমাশয়, জন্ডিস, পেট ফাঁপায় আদা চিবিয়ে বা রস করে খাওয়া হয়।

আদায় আমিষ ২·৩%, শ্বেতসার ১২·৩%,  আঁশ ২·৪% , খনিজ পদার্থ, ১·২% পানি ৮০·৮% ইত্যাদি উপাদান বিদ্যমান।

উপকারিতা :

  • জ্বর, ঠাণ্ডা লাগা, ব্যথায় আদা উপকারী।
  • অতিরিক্ত ওজন ঝরাতেও আদা সাহায্য করে।
  • বসন্ত রোগে এর রস উপকারী।
  • আদার রস শরীর শীতল করে
  • হৃদপিন্ডের জন্য উপকারী।
  • কাশি এবং হাঁপানির জন্য আদার রসের সাথে মধু মিশিয়ে সেবন করলে বেশ উপশম হয়।

১। নানা কারণে গ্যাস-অম্বলের সমস্যা আমাদের লেগেই থাকে। কারও কারও তো গ্যাস-অম্বলের সমস্যা পিছু ছাড়ে না। এই সমস্যায় আপনার উপকারী বন্ধু হতে পারে আদা। প্রতিদিন একটু করে আদা খেলে গ্যাস-অম্বলের সমস্যার উপকার পাবেন।

২। ব্যথা বেদনায় আদা অত্যন্ত উপকারী। বিশেষ করে আর্থারাইটিসের সমস্যায় আদা খাওয়া খুবই ভালো। শরীরে কোথাও আঘাত লাগলেও আদা তা তাড়াতাড়ি সারিয়ে দিতে পারে।

৩। ক্যানসার প্রতিরোধেও আদার উপকারিতা প্রমাণিত। শরীরের ক্যানসার সেলগুলিকে নিষ্ক্রিয় করতে সাহায্য করে আদা। বিশেষ করে ওভারিয়ান ক্যানসার সেল ধ্বংস করার ক্ষমতা রয়েছে আদার মধ্যে।

৪) আদা হজম ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। রোজ একটু করে আদা খেলে কিছুদিনের মধ্যেই আপনার হজম ক্ষমতা অনেক উন্নত হয়ে যাবে।

৫) মাথা ধরার সমস্যায় আদা অত্যন্ত উপকারী। খুব মাথা ধরলে আদা দেওয়া চা খেলে অনেকটা আরাম পাওয়া যায়। কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়াই আপনাকে আরাম দেবে আদা।

৬) আদা যেহেতু হজম ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে, তাই নিয়মিত আদা খেলে তা ওজন কমাতেও সহায়ক হবে।

৭) সর্দি-কাশিতে অত্যন্ত উপকারী আদা। সর্দি-কাশি হলে সকালে খালি পেটে আদা-তুলসিপাতার রস খেলে ম্যাজিকের মতো কাজ হয়।

তথ্য সুত্র : উই/কিউ