মালদ্বীপে জাতীয় শোক দিবস পালিত

মালদ্বীপে বাংলাদেশ দূতাবাসেরউদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৮টায় দূতাবাস প্রাঙ্গণে ও রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং অর্ধনমিত রাখার মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। পরে রাষ্ট্রদূতের নেতৃত্বে বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

দিনের ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী তিন দিনের শোক বইতে রাষ্ট্রদূত ও মালদ্বীপ সরকারের উচ্চপর্যায় কর্মকর্তা, ইউএনএর প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতরা স্বাক্ষর করেন।

কর্মসূচির অংশ হিসেবে দ্বিতীয় পর্বে রাজধানীর সোশাল সেন্টারের হল রুমে এক বিশেষ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রাষ্ট্রদূত রিয়ার এডমিরাল আখতার হাবীব। প্রথমে পবিত্র কোরআন তেলওয়াত, এবং ১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্টে নিহত বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন ও দোয়া করা হয় এবং শোক দিবস উপলক্ষে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দেওয়া বাণী পাঠ করে শোনান দূতাবাসের কর্মকর্তারা। পরে বঙ্গবন্ধুর কর্ম ও জীবন নিয়ে প্রামাণ্য চিত্র প্রর্দশন করা হয়।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন ও দর্শনের উপর আলোকপাত করেন বক্তারা। প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত আখতার হাবীব বলেন, বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ বঙ্গবন্ধুর এক কথায় জীবনবাজি রেখে স্বাধীনতার সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল দেশ মাতৃকার এই স্বাধীনতার জন্য। এই মনীষীর জীবনী আমাদের প্রতিটি বাঙ্গালির জন্য অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ,অনুকরণীয় ও শিক্ষণীয়।

রাষ্ট্রদূত বলেন, জাতীয় শোক দিবসকে শক্তিতে পরিণত করে। যাতে সবাই মিলে বঙ্গবন্ধুর কাঙ্ক্ষিত সোনার বাংলা গড়তে নিজেদের সর্বাত্মকভাবে আত্মনিয়োগ করতে পারি।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) টিকেএম মোশফিকুর রহমান, দূতালয় প্রধান ড. মোহাম্মদ হারুন-অর-রশীদ, দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারী, মালদ্বীপ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ প্রবাসী বাংলাদেশীরা।