ভাষা শহীদ সালাম স্টেডিয়ামে জয় দিয়েই বঙ্গবন্ধু চ্যাম্পিয়নশীপের সূচনা করেছে ফেনী

মো:মোস্তফা কামাল বুলবুল:

জয় দিয়েই বঙ্গবন্ধু জাতীয় চ্যাম্পিয়নশীপের সূচনা করেছে ফেনী জেলা দল। আজ শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) বিকাল ফেনীর ভাষা শহীদ সালাম স্টেডিয়ামে চ্যাম্পিয়নশীপের উদ্বোধনী ম্যাচের শেষ মিনিটে নোয়াখালীকে ১-০ গোলে পরাজিত করে জয়ের সূচনা করে ফেনী জেলা ফুটবল।

খেলার প্রথমার্ধে আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে দু’দল মাঠের আধিপত্য পেতে লড়াই করলেও কোন দল গোলের দেখা পায়নি। খেলার দ্বিতীয়ার্ধে সেই ধারা অব্যাহত থাকলেও খেলার শেষ মিনিটে চমক দেখায় ফেনী জেলা দল। দলের ১৫নং জার্সি পরিহিত স্ট্রাইকার মেহেদী হাসানের পা থেকে আসা একমাত্র গোলেই ফেনী জেলা দলের ভাগ্য নির্ধারিত হয়।

এর আগে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের আয়োজনে ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহযোগিতায় চ্যাম্পিয়নশীপের জেলা পর্যায়ে খেলার উদ্বোধন করেন ফেনী জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থা সভাপতি মোঃ ওয়াহিদুজজামান।

খেলায় ম্যাচ কমিশনার ছিলেন নাজমুল হুদা। ম্যাচ পরিচালনা করেন জি এম চৌধুরী নয়ন, সহকারি হিসেবে ছিলেন আবুশ বাশার ও সফিউল আলম। ৪র্থ রেফারি ছিলেন সৈয়দ করিম।

প্রথম ম্যাচে জয় পেয়ে বেশ উৎফুল্ল ফেনী জেলা ফুটবল দলের কোচ শিমুল আনোয়ার। তিনি বলেন, মাত্র ১১ দিনের অনুশীলনে ফেনী জল দল প্রথম ম্যাচে জয় পেয়েছে। এজন্য দলের ব্যবস্থাপকসহ সংশ্লিষ্টরা বেশ পরিশ্রম করেছেন। আগামী ২০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত ম্যাচেও ফেনী জেলা দল জয়ের ধারা অব্যাহত রেখে টূর্নামেন্টে চমক সৃষ্টি করবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

ফেনী দলের ম্যানেজার ছিলেন গোলাম রাব্বানী। এছাড়া সহকারি ম্যানেজার তৌহিদুল ইসলাম তুহিন ও সহকারি কোচ শাহজাদা।

অন্যদিকে প্রথম ম্যাচে হেরে গেলে ৩.২ লেগের দ্বিতীয় ম্যাচে নোয়াখালী দল ঘুওে দাঁড়াবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন নোয়াখালী জেলা দলের কোচ শাহজাহান নাসির। তিনি বলেন, দলের খেলোয়াড়রা ভালো খেলেই হেরেছে। আগামী ম্যাচে তারা দূর্বলতাগুলো কাটিয়ে উঠবে। নোয়াখালী দলের ম্যানেজার ছিলেন সজল রঞ্জিত।

আগামী ২০ জানুয়ারি সোমবার ৩.২ নাম্বারে ২য় লেগে নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে ফেনী ও নোয়াখালী মোকাবেলা করবে। টুর্নামেন্টের যমুনা জোনে রয়েছে ফেনী ও নোয়াখালী।

খেলায় আট দলকে চার জোড়ায় ভাগ করে নক আউট ম্যাচ হবে। প্রথম পর্যায়ে চারটি দল জিতবে। এই চার দলের মধ্যে আবার দুই জোড়া করে নক আউট হবে। সেই দুই নক আউট জয়ীদের মধ্যে জোনাল চ্যাম্পিয়নের লড়াই হবে। জোনাল চ্যাম্পিয়ন দল চূড়ান্ত পর্বে খেলবে।