পিরোজপুরের কাউখালীতে গৃহবধুকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ

বিকাশ হালদার, পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ

পিরোজপুরের কাউখালীতে স্বামী সাথে মিল করে দেওয়ার কথা বলে গৃহবধুকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে ধর্ষন করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার (১০ আগষ্ট) রাতে উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাশুরী গ্রামে। ধর্ষিতা ওই গৃহবধুকে ওই রাতে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
জানা গেছে, জেলার নেছারাবাদ উপজেলার গোনম্যান গ্রামের এক তরুনীর সাথে গত এক বছর আগে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া উপজেলার নবমুসলিম ওমর ফারুক (৩০) নামে এক যুবকের সাথে প্রেম করে বিয়ে হয়। ওই যুবক নবমুসলিম হওয়ায় তরুনীর পরিবার এ বিয়ে মেনে নেন নি। গত ২২দিন আগে ওই নব মসুলিম যুবক তার স্ত্রী সহ উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাশুরী গ্রামের নাছির মাস্টারের বাড়ির তত্ত্বাবধায়ক নেহেরু বেগমের ঘরে ভাড়ায় থাকার কথা বলে থাকতে শুরু করেন। এর কয়েকদিন পর স্বামী স্ত্রীর মধ্যে কলহ হলে ওমর ফারুক তার স্ত্রীকে ফেলে রেখে গা ঢাকা দেন। এ সুযোগে স্থাণীয় নবীর উদ্দিন হাওলাদারের ছেলে জালাল হোসেন হাওলাদার (৪৫) স্বামী স্ত্রীর মধ্যে মিল করে দেওয়ার কথা বলে গত সোমবার রাত ১১টার দিকে ওই তত্ত্বাবদায়ক নেহারু বেগমের কাছ থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে জালাল ওই গৃহবধুকে নাছির মাস্টারের নির্মানাধীন একটি ভবনে নিয়ে জোর করে ধর্ষন করে। এ সময় ওই গৃহবধুর ডাক-চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে ধর্ষক জালাল হোসেন পালিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে ধর্ষনের স্বীকার গৃহবধু জানান, আমার স্বামীর সাথে মিল করে দেওয়ার কথা বলে জালাল আমাকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে যায়। আমি তার কথায় বিশ্বাস করে জালালের সাথে যাই। এসময় সে পাশের একটি ভবনে নিয়ে আমাকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে।
এ ব্যাপারে কাউখালী থানা পুলিশের অফিসার ইন চার্জ মো. নজরুল ইসলাম জানান, এ ঘটনার পর ওই গৃহবধুকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তার ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে প্রেরন করা হবে। এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।