নদী পথে দুর্ঘটনা! দায় কার?

বিশেষ প্রতিবেদক :

বাংলাদেশের মানুষের ৩৫ ভাগ যাতায়াত করে নৌ পথে। আর নৌ পথেই লঞ্চ দুর্ঘটনায় মারা যায় শত-শত মানুষ। এ সকল দুর্ঘটনায় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে খুব সামান্যই।

লঞ্চ পরিবহন সেক্টরের দুর্ঘটনার অন্যতম কারন হলো ফিটনেসবীহিন লঞ্চ। জীবন রক্ষাকারী যথেষ্ট ব্যবস্থা নেই অধিকাংশ লঞ্চে।জীবনের ঝুঁকির কথা জেনেই দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যেও লঞ্চে যাতায়াত করে হাজার হাজার যাত্রী।

বেশিরভাগ লঞ্চে লাইফ জ্যাকেট বা বয়া কিছুই নেই, যাত্রীদের ভাষ্যমতে লঞ্চে লাইফ জ্যাকেট বা বয়া কোথায় পাওয়া যাবে সে সম্পর্কে তাদের ধারনা নেই।

বেসরকারী সংস্থা কোস্টের গবেষনা অনুযায়ী ১৯৭৬ সাল থেকে বাংলাদেশে ৪০০টিরও বেশী নৌ- দুর্ঘটনায় মারা গেছে ৫হাজারেরও বেশী মানুষ। দুর্ঘটনার মূল কারন রাজনৈতিক প্রভাব, অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা। গত তিনটি দুর্ঘটনাতেই লঞ্চের নকশা ছিল অবৈধ।

বাংলাদেশে ছোট বড় মিলিয়ে ৩০হাজারের বেশি নৌ-যান রয়েছে, যার মধ্যে ফিটনেস সার্টিফিকেট রয়েছে মাত্র ৯হাজার,অধিকাংশ লঞ্চেই জিপিএস ব্যবস্থা নেই, ফলে রেডিওর মাধ্যমেই আবহাওয়া সংবাদ শুনেই লঞ্চ ছাড়তে হয়।

নিয়মিত এ লঞ্চ দুর্ঘটনার দায় কার? মালিকদের না জনগণের, না সরকারের জানতে চাই দেশবাসী।